1. admin@avasmultimedia.com : Kaji Asad Bin Romjan : Kaji Asad Bin Romjan
টিভিতে বা ইউটিউবে মহিলাদের কুরআন তিলাওয়াত, হামদ, নাত গজল, ইসলামী সঙ্গীত ইত্যাদি পরিবেশন করা - Avas Multimedia টিভিতে বা ইউটিউবে মহিলাদের কুরআন তিলাওয়াত, হামদ, নাত গজল, ইসলামী সঙ্গীত ইত্যাদি পরিবেশন করা | Avas Multimedia
শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৫৬ অপরাহ্ন

টিভিতে বা ইউটিউবে মহিলাদের কুরআন তিলাওয়াত, হামদ, নাত গজল, ইসলামী সঙ্গীত ইত্যাদি পরিবেশন করা

প্রতিবেদকের নাম:
  • আপডেটের সময়: শনিবার, ৭ আগস্ট, ২০২১
  • ৩৩ বার
টিভিতে বা ইউটিউবে মহিলাদের কুরআন তিলাওয়াত, হামদ, নাত গজল, ইসলামী সঙ্গীত ইত্যাদি পরিবেশন করা
▬▬▬▬◆◈◆ ▬▬▬▬
প্রশ্ন: রমজান মাসে বা অন্য সময়ে বিভিন্ন টিভি চ্যানেল বা ইউটিউবে মহিলারা কুরআন তিলাওয়াত, হামদ, নাত বা ইসলামিক গান পরিবেশন করে। এটি ইসলামি শরিয়ত মোতাবেক কতটুকু জায়েজ? আমরা জানি যে, কোন নারীর গলার আওয়াজ গায়রে মাহরাম পুরুষদের জন্য জায়েজ নাই।
উত্তর:
মহিলাদের জন্য সুরেলা ও কোমল কণ্ঠে পর পুরুষদের সামনে কথা বলাই যেখানে জায়েজ নাই সেখানে আকর্ষণীয় ভঙ্গীতে সুন্দর ও সুরেলা কণ্ঠে কুরআন তিলাওয়াত, গজল বা ইসলামী সঙ্গীত পরিবেশ করা কিভাবে জায়েজ হতে পারে? এটি নি:সন্দেহে ফিতনার কারণ।
আল্লাহ তাআলা নারীদেরকে প্রয়োজনে পুরুষদের সাথে কথার বলার অনুমিত দিয়েছেন। তবে এ ক্ষেত্রে কোমল কণ্ঠ পরিহার করতে নির্দেশ দিয়েছেন। আল্লাহ বলেন:
إِنِ اتَّقَيْتُنَّ فَلَا تَخْضَعْنَ بِالْقَوْلِ فَيَطْمَعَ الَّذِي فِي قَلْبِهِ مَرَضٌ وَقُلْنَ قَوْلًا مَّعْرُوفًا
“যদি তোমরা আল্লাহকে ভয় কর, তবে পরপুরুষের সাথে কোমল ও আকর্ষণীয় ভঙ্গিতে কথা বলো না। অন্যথায় কুবাসনা করবে যার অন্তরে ব্যাধি রয়েছে। আর তোমরা সঙ্গত কথাবার্তা বলবে।” (সূরা আহযাব: ৩২)
সুতরাং মহিলাদের জন্য এভাবে উন্মুক্ত ভাবে সুর করে কুরআন তিলাওয়াত, হামদ, নাত, গজল বা ইসলামী সঙ্গীত পরিবেশ করা জায়েজ নাই।
তবে কেবল তা যদি মাহরাম পুরুষ বা মহিলাদের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে তাহলে তাতে কোনও আপত্তি নাই।
এগুলো টিভিতে প্রদর্শনী করলে বা ইউটিউবে আপলোড দিলে কত লক্ষ লক্ষ ফাসেক-পাপাচারী ও দুর্বল ইমানদার মানুষের কাছে পৌঁছে যায়-যা অনেক ভালো মানুষের জন্যও ফিতনার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। সুতরাং তা বৈধ হওয়ার প্রশ্নই ওঠে না।
তৎসঙ্গে যদি কুরআন তিলাওয়াত কারী, সঙ্গীত পরিবেশন কারী বা অনুষ্ঠান উপস্থাপনকারী যুবতী মেয়েদের মুখমণ্ডল খোলা থাকে/বেপর্দা অবস্থায় থাকে অথবা সঙ্গীতের সাথে বাদ্যযন্ত্রের সংযোগ থাকলে তা হারাম হওয়ার বিষয়টি আরও জটিল হবে। আল্লাহ ক্ষমা করুন।
জ্ঞাতব্য যে, মহিলাদের জন্য যেমন এভাবে গান-গজল পরিবেশন করা বৈধ নয় ঠিক তদ্রূপ পুরুষদের জন্য নন মাহরাম মহিলাদের সুর ও কণ্ঠস্বর উপভোগ করাও বৈধ নয়।
▬▬▬▬◆◈◆ ▬▬▬▬
উত্তর প্রদান:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল মাদানি
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ সেন্টার, সৌদি আরবঃ

দ্বীন প্রচারের সার্থে এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মাধ্যমগুলোতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও পোস্ট...

আজকের দিন-তারিখ

  • শনিবার (রাত ৮:৫৬)
  • ২২শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৯শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি
  • ৮ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ (শীতকাল)
© সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত-২০১৯-২০২১ ‍avasmultimedia.com
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD