1. admin@avasmultimedia.com : Kaji Asad Bin Romjan : Kaji Asad Bin Romjan
পুরুষের নাম ‘রাহিম’ এবং মহিলার নাম ‘রাহিমা’ রাখা কি জায়েজ? - Avas Multimedia
মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৫১ অপরাহ্ন

পুরুষের নাম ‘রাহিম’ এবং মহিলার নাম ‘রাহিমা’ রাখা কি জায়েজ?

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশের সময়ঃ শনিবার, ৭ আগস্ট, ২০২১
  • ১৫৬ বার দেখেছে
প্রশ্ন: পুরুষের নাম ‘রাহিম’ এবং মহিলার নাম ‘রাহিমা’ রাখা কি জায়েজ?
উত্তর:
মহান আল্লাহর অন্যতম একটি সুন্দর নাম হল, الرحيم “আর রাহীম’ (পরম দয়ালু)। কিন্তু এটি এমন একটি নাম যা আল্লাহ এবং বান্দা উভয়ের জন্য প্রযোজ্য।
কুরআনে আল্লাহ তাআলা নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে রঊফ (স্নেহপরায়ণ ও মমতাময়) এবং রাহিম (দয়ালু, দয়াময়) শব্দ দ্বারা সম্বোধন করেছেন। যেমন: আল্লাহ তাআলা বলেন,
لَقَدْ جَاءَكُمْ رَسُولٌ مِّنْ أَنفُسِكُمْ عَزِيزٌ عَلَيْهِ مَا عَنِتُّمْ حَرِيصٌ عَلَيْكُم بِالْمُؤْمِنِينَ رَءُوفٌ رَّحِيمٌ
“তোমাদের কাছে এসেছে তোমাদের মধ্য থেকেই একজন রাসুল। তোমাদের দুঃখ-কষ্ট তার পক্ষে দুঃসহ। তিনি তোমাদের মঙ্গলকামী, মুমিনদের প্রতি স্নেহশীল, দয়াময়।” [সূরা তওবা: ১২৮]
তবে মনে রাখা আবশ্যক যে, বান্দার কোন গুনই আল্লাহ এর অনুরূপ নয়। আল্লাহর গুন আল্লাহর মতই অনন্ত, অসীম, পরিপূর্ণ ও অতুলনীয় আর বান্দার গুন নিতান্ত সীমিত, ক্ষণস্থায়ী, অপূর্ণ এবং দুর্বল‌। দয়া ও অনুগ্রহের গুণটির ক্ষেত্রেও এ কথা প্রযোজ্য।
সুতরাং এ অর্থে পুরুষের নাম রাহিম (দয়াবান, দয়াময়) এবং মহিলার নাম রহিমা (দয়াবতী, দয়াময়ী) রাখায় কোনও আপত্তি নাই ইনশাআল্লাহ।
আরও পড়ুন:
আল্লাহর যে সকল গুণবাচক নাম কেবল আল্লাহর জন্য নির্দিষ্ট আর যে সকল নাম কেবল আল্লাহর জন্য নির্দিষ্ট নয় বরং বান্দার জন্যও প্রযোজ্য
আল্লাহু আলাম।
– আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল

এই পোষ্টটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই সর্ম্পকিত আরোও দেখুন
© আভাস মাল্টিমিডিয়া সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯-২০২৪