1. admin@avasmultimedia.com : Kaji Asad Bin Romjan : Kaji Asad Bin Romjan
পিতামাতা যদি মেয়েকে তাবিজ ব্যবহার করতে বাধ্য করে তাহলে তার কী করণীয়? - Avas Multimedia পিতামাতা যদি মেয়েকে তাবিজ ব্যবহার করতে বাধ্য করে তাহলে তার কী করণীয়? - Avas Multimedia
বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ১০:৫৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
গোশতের টুকরায়, গাছের পাতায়, মাছের গায়ে, রুটিতে, বাচ্চার শরীর ইত্যাদিতে আল্লাহর নাম: একটা ঘটনা প্রায় শোনা যায় যে, ইবলিস মুসা আলাইহিস সালাম-এর কাছে তওবা করতে চেয়েছিল। মুহররম মাসের ফজিলত ও করণীয় সম্পর্কে বর্ণিত ১৪টি সহিহ হাদিস অতিরিক্ত দামীও নয় আবার ছেঁড়া-ফাটাও নয় বরং মধ্যম মানের পোশাক পরা উচিৎ সুন্নতি পোশাক (পুরুষ-নারী) আশুরা তথা মুহররমের ১০ তারিখে রোযা রাখার ফযিলত কি? হুসাইন রা. এর শাহাদাত এবং আশুরার শোক পালন প্রসঙ্গে এক ঝলক ইবাদত শব্দের অর্থ ও ব্যাখ্যা কি? ব্যবসা, চাকুরী, সাংসারিক কাজ-কারবার ইত্যাদি দুনিয়াবি কাজে কি সওয়াব পাওয়া যায়? অনুমতি ছাড়া স্বামী-স্ত্রী একে অপরের অর্থ-সম্পদ খরচ করা রাতের বেলায় যে সকল সূরা ও আয়াত পড়ার ব্যাপারে হাদিস বর্ণিত হয়েছে

পিতামাতা যদি মেয়েকে তাবিজ ব্যবহার করতে বাধ্য করে তাহলে তার কী করণীয়?

কাজী আসাদ বিন রমজান
  • আপডেটের সময়: বুধবার, ২৭ জুলাই, ২০২২
  • ১০ বার
পিতামাতা যদি মেয়েকে তাবিজ ব্যবহার করতে বাধ্য করে…
প্রশ্ন: মেয়ে জানে যে তাবিজ পরা শিরক কিন্তু বাবামা যদি তাকে জোর করে তাবিজ পরতে বাধ্য করে তাহলে তার কী করণীয়?
তাবিজ না পড়লে বাবামা নানাভাবে টর্চার করে, নামায-রোযা, পর্দা ও অন্যান্য ইবাদত-বন্দেগিতে বাঁধা দেয়। এছাড়া বিভিন্নভাবে খারাপ আচরণ করে। তখন তাদের এ সব অত্যাচারের ভয়ে মেয়ে যদি অনিচ্ছাকৃত বাধ্য হয়ে তাবিজ ব্যবহার করে তাহলে কি সে গুনাহগার হবে না কি বাবামা গুনাহগার হবে?
উত্তর:
– প্রথমত: মেয়ের কাজ হবে, পিতামাতাকে তাবিজ ব্যবহারের শরঈ হুকুম সম্পর্কে সাধ্যমত বুঝানেরা চেষ্টা করানো যে, তাবিজ ব্যবহার করা হারাম। এ মর্মে অনেক হাদিস রয়েছে। হাদিসগুলো তাদেরকে শুনানোর চেষ্টা করবে।
– তারা এগুলো বুঝলে না চাইলে সে জন্য তারাই দায়ী থাকবে। কিন্তু মেয়ে তার দায়িত্ব পালনের কারণে নেকি পাবে ইনশাআল্লাহ।
– অত:পর মেয়ে তাবিজ না পরার ব্যাপারে শক্ত অবস্থান গ্রহণ করবে এবং যথাসাধ্য তা থেকে বিরত থাকার চেষ্টা করবে।
– কিন্তু তারপরও যদি তারা তাকে বাধ্য করতে চায় তাহলে ইনশাআল্লাহ এতে তার গুনাহ হবে না। কারণ সে তাদেরকে প্রতিহত করতে সক্ষম নয়। আর আল্লাহ তাআলা নিরুপায় ও বাধ্যগত অবস্থায় কৃত অন্যায়কে ক্ষমা করে দিবেন যদি সে কাজটির প্রতি অন্তরে তার প্রতি ঘৃণা বোধ থাকে।
▪ আল্লাহ তাআলা বলেন,
مَن كَفَرَ بِاللَّـهِ مِن بَعْدِ إِيمَانِهِ إِلَّا مَنْ أُكْرِهَ وَقَلْبُهُ مُطْمَئِنٌّ بِالْإِيمَانِ وَلَـٰكِن مَّن شَرَحَ بِالْكُفْرِ صَدْرًا فَعَلَيْهِمْ غَضَبٌ مِّنَ اللَّـهِ وَلَهُمْ عَذَابٌ عَظِيمٌ
“যার উপর জবরদস্তি করা হয় এবং তার অন্তর বিশ্বাসে অটল থাকে সে ব্যতীত যে কেউ বিশ্বাসী হওয়ার পর আল্লাহতে অবিশ্বাসী হয় এবং কুফরির জন্য মন উন্মুক্ত করে দেয় তাদের উপর আপতিত হবে আল্লাহর গযব এবং তাদের জন্যে রয়েছে শাস্তি।” [সূরা আন নহল: ১০৬]
▪ হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন,
عُفِيَ لأمَّتي عن الخطأِ والنِّسيانِ وما استُكرِهوا عليهِ
“আমার উম্মতের হঠাৎ ঘটে যাওয়া ভুল, স্মরণ না থাকার কারণে ঘটে যাওয়া অন্যায় এবং জোরজবরদস্তি করে কৃত অপরাধকে ক্ষমা করে দেয়া হয়েছে।” (ইবনে হাযম রা. রচিত আল মুহাল্লা, তিনি এটিকে সহীহ বলেছেন)
– তাবিজ পরতে বাধ্য করার কারণে পিতামাতা গুনাহগার হবে। কিন্তু মেয়ে গুনাহ থেকে বেঁচে যাবে ইনশাআল্লাহ। কারণ সে ছিল নিরুপায় ও জুলুমের শিকার।
আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে ইসলামের সঠিক জ্ঞান দান করুন এবং সব ধরণের অন্যায় কর্ম থেকে হেফাজত করুন। আমীন।
▬▬▬▬◢◯◣▬▬▬▬
উত্তর প্রদানে:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
জুবাইল দাওয়াহ সেন্টার, সৌদি আরব

এই পোষ্টটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরও পোস্ট...

আজকের দিন-তারিখ

  • বৃহস্পতিবার (সকাল ১০:৫৭)
  • ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৩ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি
  • ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ (বর্ষাকাল)

© সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত avasmultimedia.com ২০১৯-২০২২ ‍

ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD