মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০৭:১১ অপরাহ্ন

অতিরিক্ত দামীও নয় আবার ছেঁড়া-ফাটাও নয় বরং মধ্যম মানের পোশাক পরা উচিৎ
কাজী আসাদ বিন রমজান / ১৮৯ কত বার
আপডেট: সোমবার, ৮ আগস্ট, ২০২২
অতিরিক্ত দামীও নয় আবার ছেঁড়া-ফাটাও নয় বরং মধ্যম মানের পোশাক পরা উচিৎ
প্রশ্ন: ইসলামের দৃষ্টিতে বেশি দামি-কম দামি পোশাক পরিধানের ক্ষেত্রে কোনও নিয়ম আছে কি?
উত্তর:
পোশাক পরার ক্ষেত্রে একটি ইসলামের নিয়ম হল, খুব দামী পোশাকও নয় আবার জীর্ণ-শীর্ণ পোশাকও নয় বরং সমাজের সাথে সঙ্গতি রেখে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন মধ্যম মানের পোশাক পরিধান করা। বেশী দামী পোশাক পরলে মনে অহংকার তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। গরীব মানুষ মনে কষ্ট পাবে এবং ভয়ে-সংকোচে তারা আপনার কাছে আসবে না।
সুতরাং ক্ষমতা থাকার পরেও খুব উঁচু মানের অত্যধিক দামী পোশাক পরিধান পরিহার করাই কর্তব্য। আর আল্লাহ তায়ালা এ জন্য সে ব্যক্তিকে কিয়ামতের দিন পুরস্কৃত করবেন। যেমন: হাদিসে এসেছে-মুআয ইবনে আনাস আল জুহানী রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,
« مَنْ تَرَكَ اللِّبَاسِ تَوَاضُعًا لِلَّهِ وَهُوَ يَقْدِرُ عَلَيْهِ دَعَاهُ اللَّهُ يَوْمَ الْقِيَامَةِ عَلَى رُءُوسِ الْخَلاَئِقِ حَتَّى يُخَيِّرَهُ مِنْ أَىِّ حُلَلِ الإِيمَانِ شَاءَ يَلْبَسُهَا »
“যে ব্যক্তি আল্লাহর প্রতি বিনয় প্রকাশের উদ্দেশ্যে ক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও দামী পোশাক পরিত্যাগ করল কিয়ামতের দিন আল্লাহ তাকে সমস্ত মানুষের সামনে আহবান করে তাকে ঈমানদারদের (জান্নাতি) পোশাক সমূহের মধ্যে যা খুশি তা পরিধান করার এখতিয়ার প্রদান করবেন।” [তিরমিযী, হাদীস নং ২৬৬৯, আলবানী রহ. হাদিসটিকে হাসান বলেছেন, সিলসিলা সাহীহা- ৭১৮ নং হাদীস, শামেলা]
وقال المناوي رحمه الله :
(من ترك اللبَاس) أَي : لبس الثِّيَاب الْحَسَنَة المرتفعة الْقيمَة (تواضعا لله) أَي : لَا ليقال : إنه متواضع أَوْ زاهد وَنَحْوه ، والناقد بَصِير (وَهُوَ يقدر عَلَيْهِ : دَعَاهُ الله يَوْم الْقِيَامَة على رؤوس الْخَلَائق) ، أَي : يشهره بَين النَّاس ويناديه (حَتَّى يخيره من أَي حلل الايمان شَاءَ يلبسهَا) ” .
انتهى من “التيسير” (2/ 409) .
আবার সামর্থ্য থাকার পরও ছেঁড়া-ফাটা ও জোড়াতালি লাগানো পোশাক পরবে না। কারণ, অন্য হাদিসে এসেছে, এক ব্যক্তি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর নিকট জীর্ণ-শীর্ণ কাপড় পরে এসেছে যাতে বুঝা যাচ্ছে, তিনি একজন অভাবী মানুষ।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাকে জিজ্ঞেস করলেন, আল্লাহ তোমাকে কি কোন প্রকার সম্পদের নিয়ামত দিয়েছেন? তিনি বললেন, আল্লাহ আমাকে সকল প্রকার নিয়ামত দিয়েছেন। অর্থাৎ আমার উট, ছাগল, গরু সবই তা আছে। তখন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন,
“إِنَّ اللَّهَ إِذَا أَنْعَمَ عَلَى عَبْدٍ نِعْمَةً أَحَبَّ أَنْ يَرَى أَثَرَ نِعْمَتِهِ عَلَيْهِ”
“আল্লাহ যখন কোন বান্দাকে নেয়ামত দান করেন তখন তিনি তার উপর সেই নিয়ামতের প্রভাব দেখতে পছন্দ করেন।” [আল মুজামুল কাবীর লিত ত্ববারানী, হাদীস নং ১৪৬৯৮, শামেলা]
মোটকথা, খুব উঁচু দামীও নয় আবার খুব নিন্ম মানেরও নয় বরং একজন মানুষ যে সমাজে বসবাস করে সে সমাজের সাথে সঙ্গতি রেখে মধ্যমপন্থায় পোশাক পরিধান করা উচিৎ। আল্লাহই সর্বাধিক জ্ঞাত।
▬▬▬ ◈◉◈▬▬▬
উত্তর প্রদানে:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল মাদানী।
লিসান্স, মদীনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, সউদী আরব।
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সউদী আরব।
আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর..
জনপ্রিয় পোস্ট
সর্বশেষ আপডেট