1. admin@avasmultimedia.com : Kaji Asad Bin Romjan : Kaji Asad Bin Romjan
ইসলামে বিয়েতে উকিল দেওয়া কি জায়েজ আছে? আর তাদেরকে উকিল বাবা বা মা বলার বিধান কী? - Avas Multimedia
মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৩১ অপরাহ্ন

ইসলামে বিয়েতে উকিল দেওয়া কি জায়েজ আছে? আর তাদেরকে উকিল বাবা বা মা বলার বিধান কী?

কাজী আসাদ বিন রমজান
  • প্রকাশের সময়ঃ শুক্রবার, ১৬ জুন, ২০২৩
  • ৪৫৭ বার দেখেছে

বিয়েতে উকিল নিয়োগ এবং উকিল বাবা-মা সংক্রান্ত জরুরি বিধান ও সংশয় নিরসন:

প্রশ্ন: ইসলামে বিয়েতে উকিল দেওয়া কি জায়েজ আছে? আর তাদেরকে উকিল বাবা বা মা বলার বিধান কী?

উত্তর: নিম্নে এ বিষয়ে হাদিস ও ফকিহগণের মতামতের আলোকে নাতিদীর্ঘ আলোচনা পেশ করা হল: وبالله التوفيق
উকিল (الوكيل) শব্দটি আরবি। এর অন্যতম একটি অর্থ হল, প্রতিনিধি বা মুখপাত্র। আর আমাদের সমাজে “বিয়েতে যে ব্যক্তি কনের সম্মতি নিয়ে বরকে জানায় তাকে উকিল বলা হয়।” [দ্রষ্টব্য: বাংলা একাডেমী ব্যবহারিক বাংলা অভিধান, পৃষ্ঠা নাম্বার: ১৪৭]
অন্য কথায় কনের অভিভাবকের নির্দেশ বা অনুমতি সাপেক্ষে তার পক্ষ থেকে বিয়ের ইজাব-কবুলের জন্য অন্য কোনও সুস্থ মস্তিষ্ক সম্পন্ন, প্রাপ্ত বয়স্ক এবং উপযুক্ত মুসলিম ব্যক্তিকে প্রতিনিধি নির্ধারণ করলে তাকে শরিয়তের দৃষ্টিতে ‘উকিল’ বলা হয়।

ইসলামের দৃষ্টিতে এই উকিল বানানোর বিধান কি আমরা নিম্নে সে বিষয়টি আলোচনা করব ইনশাআল্লাহ:
কনের বিয়ের ক্ষেত্রে সবচেয়ে উত্তম হল, তার পিতা অভিভাবক হিসেবে তার মেয়ের বিয়ে দেওয়া। অর্থাৎ পিতা নিজে ইজাব-কবুলের বিষয়টি সম্পন্ন করবে। কিন্তু পিতার অবর্তমানে বা অপারগতায় তার সবচেয়ে নিকটস্থ ব্যক্তিগণ পর্যায়ক্রমে অভিভাবকের দায়িত্ব পালন করবে। যেমন: এ ক্ষেত্রে পিতার অবর্তমানে বা অপারগতায় দাদা, অত:পর সন্তান (স্বামী পরিত্যাক্তা বা বিধবা নারীর ক্ষেত্রে), অত:পর ভাই, অত:পর বৈমাত্রেয় ভাই, অত:পর চাচা, অত:পর মামা প্রমুখ ব্যক্তিবর্গ পর্যায়ক্রমে দায়িত্ব পালন করবে। এটাই সবচেয়ে উত্তম।
একান্তই যদি উপরোক্ত আত্মীয়দের মধ্যে কাউকে পাওয়া না যায় তাহলে দেশের মুসলিম শাসক বা তার দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থা (যেমন: আদালত) বিয়ের ক্ষেত্রে অভিভাবকের দায়িত্ব পালন করবে।
কিন্তু আমাদের সমাজে সাধারণত: মেয়ের পিতা (বা অভিভাবক) নিজে বিয়ের দায়-দায়িত্ব পালন না করে তার পছন্দ অনুযায়ী অন্য কানও অভিজ্ঞ ব্যক্তিকে তার পক্ষ থেকে উকিল (দায়িত্বশীল বা প্রতিনিধি) নিয়োগ দেন। আর সে ব্যক্তি তার পক্ষ থেকে বিয়েতে (কনের নিকট পর্দা রক্ষা করে শরিয়তের সীমার মধ্যে থেকে) ইজাব-কবুলের দায়িত্ব পালন করে।
এটা অনেক সময় করা হয়, অভিভাবকের এ বিষয়ে করণীয় সম্পর্কে ভালো জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা না থাকার কারণে, অনেক সময় রোগ-ব্যাধি বা শারীরিক অক্ষমতার কারণে, অনেক সময় অভিভাবক প্রবাসে বা দূরে কোথাও অবস্থানের কারণে অথবা কোন সমস্যা না থাকার পরও শুধু সামাজিক নিয়ম হিসেবে।
শরিয়তের দৃষ্টিতে এই উকিল নিয়োগ দেওয়ার বিষয়টিকে হারাম বলার সুযোগ নেই। কারণ ইসলামে ক্রয়-বিক্রয়, চুক্তি ও বিভিন্ন লেনদেনের ক্ষেত্রে উকিল (প্রতিনিধি) নিয়োগ দেওয়া একটি সুবিদিত ও ব্যাপক প্রচলিত বৈধ নিয়ম। সুতরাং বিয়ের মত দ্বিপাক্ষিক চুক্তির ক্ষেত্রেও এই (উকিল (প্রতিনিধি) নিয়োগ বৈধ।

✪ ইবনুল কুদামা রাহ. বলেন,
ويجوز التوكيل في عقد النكاح في الإيجاب والقبول؛ لأن النبي – صلى الله عليه وسلم – وكل عمرو بن أمية، وأبا رافع، في قبول النكاح له. ولأن الحاجة تدعو إليه، فإنه ربما احتاج إلى التزوج من مكان بعيد، لا يمكنه السفر إليه، فإن النبي – صلى الله عليه وسلم – تزوج أم حبيبة، وهي يومئذ بأرض الحبشة. انتهى
“বিয়ের ইজাব-কবুলের ক্ষেত্রে উকিল বানানো জায়েজ। কারণ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমর ইবনে উমাইয়া রা. এবং আবু রাফে রা. কে তার বিয়ে কবুলের জন্য উকিল বানিয়েছিলেন। কারণ এর প্রয়োজন হতে পারে। অনেক সময় এমন দূরে বিয়ে করার প্রয়োজন হতে পারে যেখানে সফর করা সম্ভব নয়। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যখন উম্মে হাবিবা রা. কে বিয়ে করেছিলেন তখন তিনি (উম্মে হাবিবা রা.) হাবাশায় (ইথিওপিয়ায়) অবস্থান করছিলেন।” [আল মুগনি, ৫/৬৪]
✪ তিনি আরও বলেন,
يجوز التوكيل في النكاح، سواء كان الولي حاضراً أو غائباً، مجبراً أو غير مجبر؛ لأنه روي أن النبي – صلى الله عليه وسلم – وكل أبا رافع في تزويجه ميمونة، ووكل عمرو بن أمية في تزويجه أم حبيبة
“বিয়েতে উকিল (প্রতিনিধি) বানানো জায়েজ-চাই অলি (অভিভাবক) উপস্থিত থাকুক অথবা অনুপস্থিত থাকুক, তা বাধ্যগত অবস্থায় হোক অথবা না হোক। কারণ বর্ণিত হয়েছে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মায়মুনা রা.-এর সাথে তার বিয়ের সময় আবু রাফে রা. কে এবং উম্মে হাবিবা রা. কে বিয়ে করার সময় আমর ইবনে উমাইয়া রা. কে (তার পক্ষ থেকে) উকিল (প্রতিনিধি) বানিয়েছিলেন।” [আল মুগনি, ৭/১৯]
✪ শাইখ আব্দুল্লাহ বিন বায রাহ. বলেন,
لا بأس، يزوِّج، من ينوب عنه مثل أبي المرأة يوكِّل خالها، يوكل أحد أولاده المُرْشِدين ينوبون عنه في التزوج؛ لا بأس، لا بأس أن يوكل الولي من ينوب عنه في تزويج ابنته أو أخته أو بنت أخيه، يوكل من هو صالح للزواج إن كان مرشدًا كخالها المرشد، كأخيها كعمها المرشد، لا بأس
“বিয়েতে অভিভাবক তার পক্ষ থেকে উকিল (প্রতিনিধি) হিসেবে অন্য কাউকে দায়িত্ব প্রদান করলে এতে কোনও সমস্যা নেই। যেমন: কনের বাবা তার পক্ষ থেকে কনের মামাকে অথবা তার দিক নির্দেশনা দেওয়ার উপযুক্ত কোনও ছেলেকে উকিল বানাবে। এতে কোনও অসুবিধা নেই। অভিভাবক তার পক্ষ থেকে তার মেয়ে, বোন কিংবা ভাতিজির বিয়েতে দিক নির্দেশনা দেওয়ার উপযুক্ত কোনও ব্যক্তিকে উকিল দিতে পারে। যেমন: দিক নির্দেশনা দেওয়ার উপযুক্ত তার মামা, ভাই বা চাচাকে উকিল বানানো।”
✪ তিনি আরও বলেন,
وهكذا الزوج له أن يوكِّل، الزوج نفسه له أن يوكل من يقبل عنه النكاح، يوكل أباه يوكل أخاه، يتقبل تزوجه من فلانة فيقول: قبلت هذا الزواج لأخي فلان أو لعمي أو لابن أخي أو لولدي؛ لا بأس؛ فالوكالة جائزة من الولي ومن الزوج نفسه.
المقدم: مع حضوره يعني.
الشيخ: مع حضوره وغيبته.
“অনুরূপভাবে স্বামীও তার পক্ষ থেকে বিয়েতে উকিল দিতে পারে। স্বামী নিজেই তার পক্ষ থেকে বিয়েতে কবুল বলার জন্য যে কাউকে উকিল বানাতে পারে। সে তার বাবা বা ভাইকে উকিল বানাতে পারে। উক্ত মহিলাকে বিয়ের ক্ষেত্রে দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি কবুল বলবে। এভাবে বলবে যে, আমি আমার উমুক ভাই, চাচা অথবা ভাতিজা বা ছেলের পক্ষে থেকে এই বিয়েতে কবুল করলাম। এতে অসুবিধা নেই। মেয়েের অভিভাবক কিংবা স্বয়ং বরের পক্ষ থেকে উকিল বানানো জায়েজ।
উপস্থাপক: তার (অভিভাবকের) উপস্থিতিতেই কি উকিল বানানো যাবে?
শাইখ: তার উপস্থিতি এবং অনুপস্থিতি উভয় অবস্থায়। [binbaz]
✪ সৌদি আরবের স্থায়ী ফতোয়া বোর্ডও অনুরূপ ফতোয়া প্রদান করেছে।
তাছাড়া উকিল বানানো আমাদের সমাজের বহুল প্রচলিত একটি দেশাচার ও প্রচলিত রীতি। আর দেশ আচার ও সামাজিক রীতি-নীতিকে ততক্ষণ পর্যন্ত হারাম বলা যাবে না যতক্ষণ তাতে হারামের সংমিশ্রণ ঘটে। অর্থাৎ তার সাথে যে হারাম বিষয়টি যুক্ত হবে সেটা পরিত্যাজ্য হবে।
মোটকথা, উকিল (বা দায়িত্বশীল বা প্রতিনিধি) নিয়োগ দেওয়া জায়েজ। একে হারাম বা বিদআত বলার কোনো সুযোগ নাই। কিন্তু দুর্ভাগ্য বশত: আমাদের সমাজে এ বৈধ বষয়টিকে কোনও কোনও আলেম বা বক্তা জোর গলায় হারাম বলে ফতোয়া দিয়ে চলেছেন-যা কনোভাবেই কাম্য নয়।

◆ যথাসম্ভব এ প্রথা থেকে বের হয়ে আসা উচিৎ:
বিয়েতে উকিল নিয়োগ জায়েজ হলেও যথাসম্ভব এ প্রথা থেকে বের হয়ে আসা উচিত। একান্ত জরুরি না হলে তা না করাই ভালো।
বর্তমানে এটা আমাদের সমাজে এমন এক পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, মনে হয় উকিল ছাড়া বিয়ে শুদ্ধ হবে না। অর্থাৎ এটা এক প্রকার আবশ্যিক বানিয়ে ফেলা হয়েছে। যার কার‍ণ দেখা যায়, বিয়ে পড়ানোর সময় কাজি সাহেব নিকানামায় উকিলের নাম লেখার জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়েন। এমনকি কনের পিতা নিজে তা করতে উদ্যত হলেও কাজি সাহেব তাতে রাজি হন না। বরং বলেন, উকিল লাগবে। এটি নিঃসন্দেহ বাড়াবাড়ি। কেননা বিয়েতে উকিল বানানো ইসলামের আবশ্যিক কোন বিষয় নয়।
তাই আমরা বলব, উকিল দেওয়া জায়েজ হলেও পিতা বা অভিভাবকের বর্তমানে তিনি সরাসরি অভিভাবক হিসেবে বিয়ের ইজাব-কবুলের দায়িত্ব পালন করবেন। এটাই সর্বোত্তম।

❑ উকিল বাবা-মা’র ক্ষেত্রে কী জায়েজ আর কী জায়েজ নয়:
◆ বর অথবা কনের পক্ষ থেকে সম্মানের উদ্দেশ্যে উক্ত পুরুষ উকিলকে ‘উকিল বাবা’ এবং তার স্ত্রীকে ‘উকিল মা’ বলে সম্বোধন করায় কোনও দোষ নেই। কারণ সম্মানের উদ্দেশ্যে যে কোনও বয়স্ক, মুরব্বি ও সম্মানিত ব্যক্তিকে বাবা এবং মহিলাকে মা বলে সম্বোধন করা জায়েজ আছে।
◆ অনুরূপভাবে সামাজিক সম্পর্কের খাতিরে তাদেরকে বিভিন্ন উপহার-উপঢৌকন দেওয়া, ঈদ, বিয়ে, আকিকা ইত্যাদি নানা উপলক্ষে তাদেরকে দাওয়াত করে খাওয়ানো, একে অপরের বাড়ি বেড়াতে যাওয়া ইত্যাদিও সবই জায়েজ।
তবে যা জায়েজ নয় তাহলো, অনেক স্থানে দেখা যায়, বিবাহিত মেয়েটি উক্ত ‘উকিল বাবা’ র সাথে নিজের জন্মদাতা বাবার মত এবং বিবাহিত ছেলেটি তার স্ত্রী বা উকিল মা’র সাথে জন্মদাত্রী মায়ের মত আচরণ করে। তারা একসাথে বেপর্দা অবস্থায় থাকে, পর্দা হীন অবস্থায় একে অপরকে দেখাদেখি করে, এ অবস্থায় পাশাপাশি বসে খোশ গল্প করে, খাওয়া-দাওয়া করে ও‌ তাদের সেবা-শুশ্রূষা করে। অনেক সময় তাদের শরীর, হাত-পা ইত্যাদি স্পর্শ করে। অনেক সময় একাকী ঘরে অবস্থান করে বা দূর সফরে যায়। মোটকথা, তারা উক্ত উকিল বাবা বা মার সামনে পর্দা করার প্রয়োজনই অনুভব করে না।
কিন্তু ইসলামের দৃষ্টিতে এগুলো সম্পূর্ণ হারাম এবং গুনাহের। উকিল বাবা-মা যদি নন মাহরাম কেউ হয় তাহলে তারা নন মাহরামই থাকবে। এই উকিল বাবা-মা হওয়ার কারণে তারা কখনো মাহরাম বলে গণ্য হবে না।
সুতরাং ছেলে বা মেয়ের জন্য তাদের সাথে সর্বাবস্থায় পূর্ণ পর্দা রক্ষা করা ফরজ।
অত:এব এ বিষয়ে আমাদের সমাজের সচেতন ও সাবধান হওয়া জরুরি। এই ক্ষেত্রে আলেম-ওলামা, দাঈ, বক্তা, মসজিদের ইমাম, খতিব, ইসলামিক মিডিয়া ব্যক্তিত্ব এবং সর্বস্তরের দ্বীনদার সচেতন মানুষের দায়িত্ব মানুষকে হালাল-হারাম বিষয়ে সুস্পষ্ট জ্ঞান দান করা এবং হারাম থেকে বিরত থাকার জন্য মানুষকে সচেতন করা।
আল্লাহ তওফিক দান করুন। আমিন।

◯ সারাংশ:
কনের বিয়েতে তার পিতা বা অভিভাবকের মাধ্যমে বিয়ের কার্যক্রম সম্পন্ন করা সবচেয়ে উত্তম। তবে অভিভাবক চাইলে বিশ্বস্ত ও অভিজ্ঞ কোনও ব্যক্তিকে এ দায়িত্ব পালনের জন্য উকিল নিয়োগ দিতে পারে। শরিয়তে এটা জায়েজ রয়েছে-যা হাদিস দ্বারা সাব্যস্ত এবং সম্মানিত আলেমগণ এ ব্যাপারে বৈধতার ফতোয়া প্রদান করেছেন।
সম্মানের উদ্দেশ্যে উকিল বাবা বা মা বলে সম্বোধন করায় এবং তাদেরকে বিভিন্ন সময় উপহার-উপঢৌকন ইত্যাদি লেনদেন করায় কোনও দোষ নেই।
তবে নন মাহরাম ব্যক্তি উকিল হলে এতে সে মাহরাম হয়ে যায় না। সুতরাং তার সামনে পূর্ণ পর্দা রক্ষা করা আবশ্যক।
আল্লাহু আলাম।

উত্তর প্রদানে:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ সেন্টার, সৌদি আরব।

এই পোষ্টটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই সর্ম্পকিত আরোও দেখুন
© আভাস মাল্টিমিডিয়া সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯-২০২৪